অনুপ্রেরণা মূলক

পার্থিব PDF Download শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

পার্থিব বইটি লিখেছেন কলকাতার বিখ্যাত লেখক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়। এটি একটি জীবনবোধের বই। বইটিতে উঠে এসেছে বিভিন্ন জীবনবোধের কাহিনী। বিভিন্ন অভিজ্ঞতার ভেতর দিয়ে জীবন যেমন ভাবে পরিচালিত হয় সেই খুঁটিনাটি বিষয়গুলো সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেছেন শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়।

আর এই সুন্দর বইটির পিডিএফ ফাইল আপনারা যদি ডাউনলোড করতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। পার্থিব বইটি মূলত আনন্দ পাবলিশার্স থেকে প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়াও বাংলাদেশের বাজারে লোকাল প্রিন্ট আকারে বিভিন্ন অনলাইন শপ বা দোকান গুলোতে বিক্রি হয়ে থাকে।

আপনারা যারা পিডিএফ ফাইল আকারে পড়তে চান তারা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করে নিয়ে পড়তে পারেন। পার্থিব পিডিএফ ডাউনলোড করতে আপনারা আমাদের ওয়েবসাইটের নিচে দেখুন। পার্থিব ও বইটিতে লেখক শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায় জীবনের বিভিন্ন দিকগুলো তার সৃষ্ট চরিত্র গুলোর মাধ্যমে উপস্থাপিত করেছেন।

শহরের জীবনের সাথে শহরের পার্শ্ববর্তী জীবনের যে কি মিল রয়েছে সেটি তার চরিত্রগুলো সুন্দরভাবে উপন্যাসের রঙ্গমঞ্চে অভিনয় করে গেছেন। আর লেখক এর লেখার হাতের দক্ষতার মাধ্যমে উপন্যাসের উপজীব্য বিষয়গুলো প্রত্যেকটি পাঠকের মনে দাগ কেটে গেছে। বইটির কেন্দ্রীয় চরিত্রে যেসব চরিত্র গুলো রয়েছে সেগুলো আমাদের চারপাশের বিভিন্ন চরিত্রেরই অনুকরণ।

আর বইটি যখন আপনি পাঠ করবেন তখন জীবনকে গভীরভাবে উপলব্ধি করতে শিখবেন, জীবনের চাওয়া পাওয়া ক্ষুদ্র বিষয়গুলোর মাধ্যমে আনন্দ খুঁজে পাবেন। আপনি খুব সুন্দর ভাবে খুজে পাবেন উপন্যাসের চরিত্রগুলো। বিষ্ণুপদ, কৃষ্ণ জীবন, রামজীবন, বামাচরণ, তাদের কন্যা বীণাপাণি ও তার স্বামী নিমাই এর জীবনের বিভিন্ন দিক গুলো উঠে এসেছে।

একইসাথে যেমনভাবে দেখিয়েছে দারিদ্র, দুঃখ-দুর্দশা তেমনিভাবে দেখিয়েছে উচ্চবিলাসী জীবন। তাছাড়াও উপন্যাসের অন্যান্য চরিত্র যেমন হেমাঙ্গ, চারুশীলা, ঝুমাদি, মনিশ, অপর্ণা, অনিস ইত্যাদি গুলো চরিত্রগুলো সুন্দরভাবে কথোপকথনের মাধ্যমে জীবনকে উপস্থাপিত করেছে। এই উপন্যাসটি কলকাতার দেশ পত্রিকায় দীর্ঘকাল ধরে প্রকাশিত হয়েছিল বলে এটি প্রতি পাঠক মহলে ব্যাপক চাহিদা ছিল।

পরবর্তীতে যখন উপন্যাসটি বই আকারে প্রকাশ পায় তখন পাঠক মহলে ব্যাপক সাড়া ফেলে। পার্থিব পিডিএফ ডাউনলোড ও কাহিনী সংক্ষেপ বিষ্ণুপদ তার দীর্ঘ জীবনে অনেক অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছে। ছেলেরা যেমন একদিকে উন্নতি করেছে, অন্যদিকে অভাব-অনটনের ভেতরেও বসবাস করছে। সংসারের ছেলে বউদের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের অশান্তি লেগেই আছে। তার পরেও তার স্ত্রী তাকে সবসময়ই ভালবাসার চোখে দেখে।

স্বামীর দেখভাল করাই যেন তার প্রধান ধর্ম। বিষ্ণুপদ বৃদ্ধ হলেও সংসারের হাল চাল সম্পর্কে ব্যাপক আগ্র।হ সকলে যাতে সুখে শান্তিতে বসবাস করে এই নিমিত্তে সকল কিছুতেই তার পদচারণা। জীবনের শেষ মুহূর্তটিকেউ তিনি সন্তানের সুখের দিন চেয়েছেন। গরিব পরিবারের সন্তান চয়ন। টিউশনির মাধ্যমে তার সংসার চলে। মাকে নিয়ে তার সংসার।

বড় ভাইয়ের সংসারে থাকলেও সম্পত্তির দাবি-দাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারে বলে সে পরিবারে তাদের সম্পর্কটা খুবই দুর্বল। চয়ন একজন মৃগীর রোগী। গল্পের শুরুতে গরমের মধ্যে বাস থেকে নেমে যায় এবং তার মৃগী রোগের কারণে রাস্তার মাঝখানে পড়ে যায়। আশিস বর্ধন নামে এক ভদ্রলোক তাকে সাহায্য করে।

পড়াতে গিয়েও তার ছাত্রের মা তার করুণ দৃশ্য দেখে বুঝতে পারে। জীবন যেখানে যাকে তাড়া করে বেড়ায় সে সবকিছু থেকেই দৌড়াতে থাকে। তাই চয়ন জীবনের প্রয়োজনে সুন্দরভাবে বাঁচার স্বপ্নকে কেন্দ্র করে সুন্দর একটি জীবন পেতে চাই। সে কি পেরেছিল সুন্দর একটি জীবন পেতে? যদি তা জানতে চান তাহলে আপনাকে পুরো বইটি পড়তে হবে। বিষ্ণুপদ এর কন্যা বীণাপাণি সংসারে অভাব-অনটন দেখে নতুন একটি যাত্রা দলে যোগদান করে।

দিনে দিনে অভিনয় এর দক্ষতা অর্জনের ফলে তার ব্যাপক নামডাক হয়। কিন্তু এই নাম ডাক নাম তার স্বামী নিমাই কোনোভাবেই মেনে নিতে পারে না। একদিকে অভিনেত্রীর জয় জয় গান, অন্যদিকে স্বামীর পিছুটান এ নিয়ে জীবন চলছে বীণাপাণির।

তার জীবনে কি ঘটতে চলেছে তা কি আপনারা যদি জানতে চান? তাহলে সংক্ষিপ্ত ইতিহাস না পরে বিস্তারিত বইটি পড়ুন। প্রত্যেকটি চরিত্রকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে সুন্দর গল্প এই উপন্যাসটিতে। তাই আপনারা বইটি ডাউনলোড করে নিন আর প্রত্যেকটি চরিত্রের কথোপকথনের মাধ্যমে সাহিত্য পাঠের রসাস্বাদন করুন।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.