উপন্যাস

প্রথম আলো PDF Download সুনিল গঙ্গোপাধ্যায়

প্রথম আলো বিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগের বিখ্যাত বাঙালি কবি ও কথাসাহিত্যিক সুনিল গঙ্গোপাধ্যায় রচিত একটি জনপ্রিয় ও ঐতিহাসিক উপন্যাস। দুই খন্ডের এই উপন্যাস টি প্রায় ১২০০ পৃষ্ঠা জুড়ে রচিত। প্রথম আলো উপন্যাস টি নতুন শতাব্দীর নতুন আলো ধরেই এগিয়েছে। দীর্ঘ এই উপন্যাস টি রচিত হয়েছে উনবিংশ শতাব্দীর শেষার্ধের পটভূমিকায়।

সুদীর্ঘ এই উপন্যাস টি শুরু ত্রিপুরার রাজপরিবারের কাহিনী নিয়ে। তার ক্রমশ তা জমাট বাঁধে কলকাতার ঠাকুর পরিবার ও অন্যান্য বিশিষ্ট মানুষদের নিয়ে। এই উপন্যাসের কেন্দ্রীয় চরিত্র গুলো সবই প্রায় বাস্তব ঐতিহাসিক চরিত্র। যেমন, রবীন্দ্রনাথ, নরেন্দ্রনাথ, রামকৃষ্ণ, নটী বিনোদীনি, গিরিশচন্দ্র প্রভৃতি। সুনীলই প্রথম রবীন্দ্রনাথ কে উপন্যাসের চরিত্র হিসেবে ব্যবহার করেছেন।

প্রথম জীবনে রবীন্দ্রনাথের কবি হয়ে ওঠার পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান রয়েছে কাদম্বরী দেবীর। তিনি ছিলেন প্রথম জীবনে তার কাব্য লক্ষী, তার কবি হয়ে ওঠার অনুপ্রেরণা। রবীন্দ্রনাথের বিয়ের পরই কাদম্বরী দেবী আত্মহত্যা করেন। তবুও কাদম্বরীর ছায়া পুরো প্রথম আলো উপন্যাস জুড়ে রয়েছে।

উপন্যাসটিতে ফুটে উঠেছে রবীন্দ্রনাথের বিয়ের কাহিনী, স্ত্রীর সাথে তার সম্পর্কের কথা, পরিপূর্ণ কবি হয়ে ওঠার পাশাপাশি একজন প্রেমিক, একজন স্বামী, একজন কন্যাদায়গ্রস্থ পিতা, একজন রাজনীতি সচেতন মানুষ, সর্বপরি একজন সমাজ সেবক হিসেবে তার নানামুখী চরিত্র অঙ্কিত হয়েছে। অঙ্কিত হয়েছে শান্তি নিকেতন প্রতিষ্ঠার পেছনে তার শ্রম ও ত্যাগের কথা।

এই উপন্যাসে ত্রিপুরার রাজপরিবার থেকেই সুনীল বের করে নিয়ে আসেন ভরত নামক কাল্পনিক চরিত্র। উপন্যাসের দুটি কাল্পনিক চরিত্র ভরত আর ভূমিসূতা। উপন্যাসটির ঘটনাপ্রবাহ আবর্তিত হয়েছে দুটি চরিত্র কে কেন্দ্র করে। ভরতকে কেন্দ্র করেই সন্নিবেশিত হতে থাকে উপন্যাসের প্লট। ভরত সময়ের প্রতিনিধি হয়ে ঘুরতে থাকে নানা প্রান্তরে, ইতিহাসের দ্বারে দ্বারে।

ভরতের পাশাপাশি উপন্যাসটির চরিত্র গুলোর সাথে সংযোগ তৈরী করতে অবদান রেখেছে নারী চরিত্র ভূমিসুতা। সময়ের অন্যার্য দাবির সাথে আপোষহীন ভূমিসুতা একসময় নয়নমণি নামে বিখ্যাত হয়ে ভূমিতেই ফিরে আসে। আবার ভূমিসুতা হয়ে উঠে। তাই ভরত আর ভূমিসুতা এই উপন্যাসের প্রধান চরিত্র ও নায়ক-নায়িকা।

বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে বঙ্গভঙ্গের প্রেক্ষাপট ও উপন্যাস টি তে বিস্তৃত হয়েছে। উপন্যাসে লেখক বঙ্গভঙ্গ ও তৎকালীন স্বদেশী আন্দোলনকে কলকাতার বাঙালি বাবুদের দৃষ্টকোন থেকেই বিচার করেছেন। বঙ্গভঙ্গের পেছনে ব্রিটিশ দের যে উদ্দেশ্য থাকুক না কেনো, তা যে পূর্ব বাংলার মানুষের জন্য সম্ভবনাময় উন্নতির উদ্যেগ ছিল ও পূর্ব বাংলার মানুষ এটাকে সমর্থন ও করেছিল- এই ব্যাপারটা লেখক একেবারে চেপে গেছেন। বরং বঙ্গভঙ্গের পক্ষে নেতৃত্ব দানকারী স্যার সলিমুল্লাহ কে অসাম্প্রদায়িক নেতা হিসেবে বিবেচনা করেন।

বঙ্গভঙ্গ আন্দোলন কে সমর্থন দেওয়া নিয়ে লেখক বলেন, এই জায়গাটিতে পূর্ব ও পশ্চিম বাংলার সাহিত্যক দের চিন্তার ব্যবধান ফুটে ওঠে। প্রথম আলোর পুরোটা জুড়ে রবীন্দ্রনাথ ও বিবেকানন্দের বিচরণ মুখ্য হয়ে থাকলেও গিরিশচন্দ্র, খুদিরাম বোস, মহাত্মা গান্ধী, স্বামী বিবেকানন্দ, জগদীশ চন্দ্র বসু, সুরেন ব্যানার্ির মতো অসংখ্য লোকের কথা পাতায় পাতায় জীবন্ত হয়ে আছে।

পরিধি বিচার করলে জানা যায় এটি একটি বিখ্যাত উপন্যাস। তাই এই অসাধারণ উপন্যাস টি পড়তে আমাদের ওয়েবসাইট টি ভিজিট করুন।

প্রথম আলো PDF Part 1

প্রথম আলো PDF Part 2

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.