উপন্যাস

আরণ্যক PDF Download বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়

আরণ্যক PDF Download বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়, বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় রচিত আরণ্যক উপন্যাস টি আমাদের ওয়েবসাইট থেকে সম্পূর্ণ ফ্রিতে ডাউনলোড করা যাবে। বইটি ডাউনলোড এর আগেই আপনার উচিত কাহিনী সংক্ষেপ পড়ে নেওয়া। তাহলে বইটি পড়ার জন্য আপনি আগ্রহী হবেন। সবার আগে নিচে দেওয়া কাহিনী সংক্ষেপ বা বুক রিভিউ পড়ে নিন। এবং সবশেষে প্রদত্ত লিংকে ক্লিক করে পিডিএফ ডাউনলোড করে নিন।

আরণ্যক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায় কাহিনী সংক্ষেপ

বাংলা সাহিত্যের অমর কবি বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায় এর এক সৃতিচারণ মূলক বই “আরণ্যক”।

এটি উপন্যাস হলেও লেখকের বাস্তব জীবনের অভিজ্ঞতাই তুলে ধরেছেন।একজন মানুষ কতটা প্রকৃতিপ্রেমী হতে পারে তাই এই বইটি প্রমাণ রাখে। জমিদারির জমি বিলির কাজে লেখক তার বন্ধুর অনুরোধে লবটুলিয়া নাম স্থানে যায় ।

কলিকাতা শহরের হৈচৈ কর্ম কোলাহলের মধ্যে অহরহ ডুবে থেকে যখন লবটুলিয়া বইহার কি আজমবাদের সে অরণ্য-ভূভাগ , জোৎস্না রাত, গভীর রাত্রে বন্য নীল গাইয়ের পদধ্বনি, শৈলরাজ, নাম না জানা হরেক রকম বনফুল, ফুটন্ত রক্তপলাশের ঘন বন, পিপাসিত বন্যমহিষ আর অরণ্যর এক স্বর্গীয় মায়ার আটকে যেতে হবে।

কলিকাতা শহরের বাইরে সেই অরণ্যে মানুষের যে কত খাবারের অভাব। শীতের রাত্রে অন্যের পাতের ভাতাটুকু নেবার জন্য ঠায় দাঁড়িয়ে থাকা মেয়ে কুন্তী। ছয় মাস পর ভাত খেতে পাওয়া সেই গরীব লোকটি, চীনা ঘাসের দানা আর সামান্য গুড় পেলেও যে মানুষ কত খুশি হতে পারে। জীবন এখানে বড় কষ্টের।

কবির চোঁখে এই খুবই সাধারণ বন্য জীবন যে কি মোহনীয় হয়ে ধরা দিবে তা এই বই না পড়লে বোঝা সম্ভব না। এই অরণ্য বসবাস কারী সহজ সরল মানুষ গুলোকে যে মহীমায় তুলে ধরেছেন কবি বিভূতিভূষণ বন্দোপাধ্যায়। লবটুলিয়া অরণ্য কবি নিজে হাতে শেষ করেছেন।

যেখানে প্রকৃতি তার আপন অভয়ারণ্য সৃষ্টি করে রেখে ছিল । বহুকাল কেটে গেছে লেখকের কাছে মনে হয় যেন সেই বনদেবীর মত দাড়িয়ে আছে রাজ কুমারী ভানুমতী, যে আর বালিকা নেই, যৌবন প্রাপ্ত বটবৃক্ষের মত বলীয়ান, তাদের গৌরবময় রাজকীয় অতীত।

সেই ভোলাভালা মেয়েলী ধরণের ছেলেটাকে মনে পড়ে যার মৃতদেহটা অরণ্যে পাওয়া গিয়েছিল। সেই রাজু পাঁড়ে, গনোরী, যুগল প্রসাদ মাটির কোলের শিশুর মত সরল মানুষ গুলো। সেই লোকটি যে বনের মধ্যে ফুলের বীজ ছড়িয়ে দিত, ফুলের অমরাবতী সৃষ্টি হত অপার মহিমায়।

লেখকের আর পাঁচটা উপন্যাসের মতই আরণ্যক উপন্যাস টি পড়ে পাঠকের প্রকৃতি প্রেম জেগে উঠতে বাধ্য। প্রকৃতির মোহজালভেদ করা যে কত কঠিন আর রহস্য ময় তা এই বইটি প্রমাণ। লেখক একজন শহুরে মানুষ হওয়া সত্বেও এই অরণ্যে এসে ছয় সাতটি বছর কাটিয়েছেন শুধুমাত্র প্রকৃতির মোহে আটকে গিয়ে।

নিজ হাতে যে অরণ্য রাজ্য বন কেটে জনপদ বসিয়েছে তার জন্য লেখকের মনে গভীর বেদনা প্রকাশ পেয়েছ। এই বইটি মুলত ধারাবাহিক কোন কাহিনি নয়, বরং সেই অরণ্যের সাদামাটা জীবনের অতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র আনন্দ, বেদনা, অশ্রু, ব্যাথা, রহস্য, প্রকৃতির মায়াজাল, সরল মানুষ গুলো যারা সভ্য জগতের বাহিরে অরণ্যে বিচরণ করা মানুষ গুলোর কথ।

যারা স্বপ্ন দেখে না শহুরে জীবনের। শুধু পেটের ক্ষুধা নিবারণের এত সংগ্রাম। পাঠকেরা এই বই পড়তে গিয়ে আটকে যাবেন কবির অসাধারণ শব্দ চয়নে। যেন সুরের মুর্ছনায় প্রকম্পিত হবে আপনার চিত্ত। উপন্যাসের শুরু থেকে শেষ অবধি ডুবে থাকতে হবে এক অদ্ভুত মোহনায়।

খুব সহজ ও সাবলীল ভাষায় লেখা বইটি আপনাকে নিয়ে যাবে খুব উচ্চ মার্গীয় সাহিত্য সোপানে। এই কোন সাধারণ সাহিত্য নয় প্রতিটি লাইন পাঠককে নিয়ে যাবে লবটুলিয়ার সেই গভীর অরণ্যে, প্রকৃতির সাথে মিলে মিশে একাকার হয়ে যাবে পাঠকের হৃদয়।

বইটি পড়ার সময় আপনি নিজেকে খুঁজে পাবেন সেই অরণ্যে। আরণ্যক উপন্যাস টি কাল্পনিক নয়। মানুষের বসতির পাশে কোন নিবিড় অরন্য নেই তবে অরণ্য আছে দুর দেশে।ভারতের কুশি নদীর অপর পারে এরুপ অরণ্য একসময় ছিল যা কালের গর্ভে চলে গেছে কল্পনার বাহিরে।

কবি নিজ হাতে যে বনভূমি লোকালয়ে পরিণত করেছে, তার জন্য গভীর অনুশোচনা বোধের থেকে সৃষ্টি এই “আরণ্যক”। তাই তো বইটির শেষ অংশে লেখক বলেছেন,” হে অরণ্যানীর আদিম দেবতারা,ক্ষমা করিও আমায়, বিদায় ” । কারণ প্রকৃতি প্রেমী প্রকৃতি মাতাকে বিদায় জানাতে পারে না। চিরকাল সৃতির পাতায় অমর হয়ে থাকবে অরণ্যের মোহনীয় মায়া।

আরণ্যক পিডিএফ ডাউনলোড

বইয়ের কাহিনী সংক্ষেপ পড়ার পরে আপনার উচিত নিচে দেওয়া লিংকে ক্লিক করে পিডিএফ ডাউনলোড করে নিন। তাহলে যেকোনো পরিস্থিতিতে বা যেকোনো জায়গায় আপনি উপন্যাসটি পড়তে পারবেন আপনার স্মার্ট ফোন ব্যবহার করে। তবে এজন্য অবশ্যই আপনার মোবাইলে পিডিএফ রিডার থাকতে হবে।

বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যান্য লেখাগুলো পড়ার জন্য আমাদের ওয়েবসাইট থেকে বইগুলো ডাউনলোড করে নিন।

আমাদের ওয়েবসাইটের বইগুলো আপনার কেমন লাগছে তা কমেন্টে জানাবেন। ভালো লাগলে অবশ্যই বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করবেন। আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.