উপন্যাস

হিমুর নীল জোছনা PDF Download হুমায়ূন আহমেদ

হিমুর নীল জোছনা একটি জনপ্রিয় উপন্যাস। উপন্যাসটি লিখেছেন বিখ্যাত ঔপন্যাসিক হুমায়ুন আহমেদ। তার রচিত প্রতিটি উপন্যাস অত্যন্ত জনপ্রিয়। এটি হিমু সিরিজের ২১ তম বই। উপন্যাসটি প্রকাশিত হয় ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারীতে। উপন্যাসটি প্রকাশিত হয়েছে অন্যপ্রকাশ প্রকাশনী থেকে। বইটির পৃষ্ঠা সংখ্যা ৮০ টি এবং বইটি শক্ত মলাটে ছাপা হয়েছে।

হিমু সিরিজের প্রতিটি বই অত্যন্ত চমৎকার ও হাস্যরসে ভরা। যা পড়ে পাঠকের মনে অনেক আনন্দের সৃষ্টি হবে। ‘ হিমুর নীল জোছনা ‘ উপন্যাসের পূর্ববর্তী বই ‘হিমুর মধ্য দুপুর ‘ এবং পরবর্তী বই ‘হিমুর আছে জল’। এই বইটি আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ফ্রি পিডিএফ ডাউনলোড করে পড়তে পারবেন। যারা এখনো বইটি পড়েননি তারা তাড়াতাড়ি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে বইটি পড়ে ফেলুন।

হিমুর নীল জোছনা উপন্যাসের মূল কাহিনী

মেসের ঘরে হিমু শুয়ে আছে তন্দ্রাছন্ন অবস্থায়। বাইরে ঝুম বৃষ্টি হচ্ছে। এই অবস্থায় কোনভাবে বাইরে যাওয়া যায় না। তাই হিমু শুয়ে আছে। হটাৎ করেই হিমু দেখছে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার সামনে বসে আছে। হাতলওয়ালা চেয়ারে বসে থেকে তিনি চায়ে পাউরুটি ভিজিয়ে খাচ্ছেন। হিমু তাকাতেই তাকে নানা রকম প্রশ্ন করেন তিনি। হিমু একটারও উত্তর দিতে পারেনি।

এরপর সে দেখে আইনস্টাইন তার সামনে বসে থেকে তাকে বিভিন্ন ধরনের ক্যালকুলেশন জিগ্যেস করছে। হিমু শুধু বোকার মত হা করে তাদের দিকে তাকিয়ে আছে। এই সবকিছুই তার কাছে সত্যি বলে মনে হচ্ছে। সে ভাবছে সবকিছুই তার চোখের সামনে ঘটছে। একটু পরেই বুঝতে পারে তন্দ্রাঘোরে সে স্বপ্ন দেখছে।

হিমুর স্বভাব হল রাত বিরাতে রাস্তায় হাটাহাটি করা। হিমুর জীবন অগোছালো বাউন্ডুলে টাইপ। মহাপুরুষ হওয়ার চিন্তা সবসময় তার মাথায়। এতসব কিছুর মধ্যেই সে প্রায় সবই ভালো কাজ করে। গল্পের কাহিনি এগিয়ে যায় ছামাদ নামের একটা লোকের হাত ধরে। লোকটা অনেক আপদ বিপদ তার সাথে করে নিয়ে আসে হিমুর কাছে। হিমুর সাথে জড়িয়ে পড় লোকটা। তারপর হিমুকে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এইসব সমস্যার সমাধান সব হিমু করে। হিমু তাকে নানা ভাবে সাহায্য করে বিপদ থেকে বাচায়।

এরপর হিমুর একজন খুনি বাবার সাথে পরিচয় হয়। যার দুটো সুন্দর ফুটফুটে মেয়ে রয়েছে। সেই মেয়ে দুটোকে বাচিয়ে হিমু একটি বৃদ্ধ দম্পতির কাছে রাখে। সেই খুনি বাবা তার স্ত্রীকে হত্যা করে। মেয়ে দুটো সেই বৃদ্ধ দম্পতির কাছে ভালোভাবে থাকে। এইসব বিভিন্ন ঘটনার মধ্যে দিয়ে গল্পের কাহিনি এগোতে থাকে। এরপর আমরা একজন পুলিশ চরিত্রে নাজমুল হুদা নামক লোকের দেখা পায়।

পুলিশের মধ্যে যে অনেক ভালো মানুষ আছে তা নাজমুল হুদাকে দিয়ে বোঝা যায়। তিনি বিভিন্ন রকম ভালো কাজ করেন যা সচারাচর পুলিশের মধ্যে দেখা যায়না। কংকন নামের একটি চরিত্রের সাথে আমরা পরিচিত হই এই উপন্যাসসে যে চরিত্র সব জায়গায় পরিলক্ষিত হয়।

উপন্যাসটি মূলত সেই সময়ের রাজনৈতিক পরিস্থিতির উপর নিয়ে রচিত হয়েছে। ঢাকার সবার সেই চেনা রাস্তাঘাট মালিবাগ, কলাবাগান, ধানমন্ডি গল্পের কাহিনি এগিয়ে গিয়েছে। উপন্যাসের শেষে হিমুর বাবার কিছু উপদেশ রয়েছে যা অনেক শিক্ষনীয়। বইটি অনেক চমৎকার যা পড়ে অনেক মজা পাওয়া যাবে।

হিমুর নীল জোছনা PDF

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.