থ্রিলার

কেউ কেউ কথা রাখে PDF Download মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন

বাংলাদেশের বিখ্যাত লেখক মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিনের জনপ্রিয় একটি থ্রিলার উপন্যাস হলো “কেউ কেউ কথা রাখে”। তাঁর রচিত সবগুলো থ্রিলার উপন্যাসই বাংলাদেশ সহ অন্যান্য দেশের পাঠকদের কাছে অত্যন্ত পরিচিত ও জনপ্রিয়। তার উপন্যাস পড়ার সময় সবারই একটা পড়ার আগ্রহ সৃষ্টি হয়। নাজিম উদ্দিন তার প্লটগুলো অনেক সুন্দর ভাবে সবার সামনে উপস্থাপন করেন। তার সহজ,সুন্দর, সাবলীল ও প্রাঞ্জল ভাষা ব্যবহারের জন্য নতুন পাঠকদের পড়ার আগ্রহ সৃষ্টি করে।

“কেউ কেউ কথা রাখে”এটি একটি রহস্য ও গোয়েন্দা মূলক উপন্যাস। বইটি হার্ডকভার এ ছাপা হয়েছে। বইটি প্রথমবার প্রকাশিত হয় 2015 সালের ডিসেম্বর মাসে। তৃতীয়বারের মতো বইটি সংস্কার করে আবার প্রকাশিত হয় 2016 সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। বইটি প্রকাশ করেছে বাতিঘর প্রকাশনী। বইটিতে মোট পৃষ্ঠা সংখ্যা রয়েছে 269 টি। বর্তমানে বইটির মুদ্রিত মূল্য 238 টাকা।

কাহিনী সংক্ষেপ

এই উপন্যাসটি লেখক এর স্মৃতিকথা ধরনের লেখা। এখানে লেখক তার ব্যক্তিগত জীবনে ঘটে যাওয়া চরম কিছু সত্য ঘটনা তুলে ধরেছেন। যে সত্য লেখক কে চিন্তার মধ্যে ফেলে দিয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী স্বাধীন দেশে ঘটে যাওয়া লেখকের জীবনে ঘটে যাওয়া কিছু ঘটনাকেই তুলে ধরেছেন এখানে। সে সময়ে পুলিশ বাহিনীতে কাজ করতেন লেখক। সেই সময়ে মিলি নামের এক সদ্যবিবাহিতা তরুণীকে বিয়ের তিন মাসের প্রথমদিকে ধর্ষণ করে খুন করা হয়েছিল।

সেই মামলার তদন্তের দায়িত্ব এসে পড়ল লেখক ও তার উর্দ্ধতন কর্মকর্তার ওপর। লেখক ও সেই কর্মকর্তা খুব তাড়াতাড়ি খুনিকে গ্রেপ্তার করে ফেলল কারণ উনি নিজেই স্বীকারোক্তি দিয়েছিল তার অপরাধের। কিন্তু আমরা একটা কথা জানি অনেক সময় অপরাধী কে ধরা সত্বেও তার শাস্তি নিশ্চিত করা যায় না। এই ক্ষেত্রেও ঠিক তেমনটাই হলো।

মুক্তিযুদ্ধের সময় এমন অনেক অপরাধ ঘটেছে যেটার কোনো তদন্ত হয়নি বা অপরাধীকে জানা সত্বেও তার শাস্তির ব্যবস্থা করা যায়নি। মিলির তদন্তের ক্ষেত্রেও তেমনটাই হলো। অপরাধীকে ধরা সত্বেও তার রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ছাড়া পেয়ে যায় জেল থেকে। প্রায় দুই যুগ পরে লেখক আবার সেই কেসটি নিয়ে ভাবতে শুরু করে। শেষে এসে কেসের ব্যাপারে এমন কিছু লেখক জানতে পারে যা লেখক চিন্তাও করতে পারেননি। শেষ পর্যন্ত কী রহস্য লেখক খুঁজে বের করে করে সেটা জানতে হলে অবশ্যই বইটা পাঠকদের শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে।

উপন্যাসটির নাম শুনে একটু অবাক লাগবে সবার। লেখক উপন্যাসটির নামের ভেতর দিয়ে অনেক গভীর কিছু বোঝাতে চেয়েছেন। আমরা তো সাধারনভাবে এটা জানি যে, কেউ কথা দিয়ে কথা রাখে না কিন্তু লেখক এখানে বলেছেন কেউ কেউ সত্যি সত্যিই কথা রাখে। লেখক এখানে মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে দেশের রাজনৈতিক অবস্থা কেমন ছিল সেটাই এখানে তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। শতকোটি রক্তের বিনিময়ে যে স্বাধীনতা বাঙালিরা অর্জন করেছিল সেটা কি আদৌ বাঙালিরা ভোগ করতে পেরেছে?

লেখক এর মতে স্বাধীনতার পরবর্তী সময়টা বাঙ্গালীদের কাছে অন্ধকার যুগ হিসেবে সবাইকে পরিচয় করিয়েছেন। নাজিম উদ্দিনের অন্যান্য জনপ্রিয় থ্রিলার উপন্যাস এর মতই এটিও একটি চমৎকার উপন্যাস, যেখানে সাসপেন্স,রোমান্স সবকিছুই বিদ্যমান। বইটি একবার পড়া শুরু করলে শেষ না করা অব্দি কেউ ছাড়তে পারবে না। তাই এখনো যারা উপন্যাসটির হার্ড কপি সংগ্রহ করতে পারেননি তারা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে সহজ উপায়ে বইটি ডাউনলোড দিয়ে পড়ে নিতে পারবেন। আশা করি একঘেয়েমি অনুভব করবেন না বইটি পড়ে।

Download

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *