ভ্রমণকাহিনী

সাম্ভালা PDF Download শরীফুল হাসান – সাম্ভালা দ্বিতীয় যাত্রা

যে সকল পাঠক সাম্ভালা সিরিজের প্রথম বইটি পড়েছেন তাদের জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে নিয়ে এসেছি সাম্ভালা সিরিজের দ্বিতীয় বই। সাম্ভালা সিরিজের দ্বিতীয় বই হল সাম্ভালা দ্বিতীয় যাত্রা। প্রথম বারের মতো এবারেও আপনারা অনেক থ্রিলিং অনুভূতি পাবেন। তাই শরীফুল হাসানের এই বইটি যদি আপনারা পড়ে না থাকেন তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে বইটির পিডিএফ ফাইল সংগ্রহ করবেন।

আপনাদের জন্য এই বইটি ডাউনলোড করার ক্ষেত্রে নিচের পিডিএফ ফাইল দেয়া হয়েছে এবং সেই পিডিএফ ফাইল আপনার সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। এইসব সাম্ভালা সিরিজের নতুন নতুন চরিত্র এবং নতুন ঘটনা জানতে আপনারা এ বইটি দ্বিতীয়বারের মতো পাঠ করুন।

সাম্ভালা বইটি প্রথম দিকে আলাদা আলাদা ভাবে বের হলেও পরবর্তীতে অখন্ড বের হয়। পরবর্তীতে এ বইটি লিমিটেড এডিশন বের হয়ে থাকে এবং তার মুদ্রিত মূল্য ধরা হয় 1 হাজার টাকা। তবে বইটির যারা সফট কপি পেতে যাচ্ছেন তারা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে পিডিএফ ফাইল পেয়ে যাবেন।

সাম্ভালা দ্বিতীয় যাত্রা কাহিনী সংক্ষেপ

সেই প্রাচীন বইটি নিয়ে প্রথম পার্টৈ আমরা দেখতে পেয়েছি যে, একটি প্রাচীন বইয়ের জন্য শামীমকে খুন করে তার বন্ধু রাশেদ এর পেছনে লাগে কালো জাদুর অনেক লোক। পরবর্তীতে সেই বইয়ের প্রকৃত মালিক এসে বইটি নিয়ে যাই। সাম্ভালা দ্বিতীয় যাত্রা বইটিতে তার এক বছর পরের ঘটনা থেকে শুরু হয়। রাশেদ এবং তার বন্ধু রাজু পাহাড়ি এলাকায় অবসর কাটাতে বেড়াতে যাই। সেখানে গিয়ে ফিরে আসার সময় তারা রাস্তা ভুলে বনের গভীরে চলে আসে এবং তারা বনদস্যুদের হাতে ধরা পড়ে। সেখানে তারা গিয়ে পরিচিত হয় লরেন্স ডি ক্রুজ এর সঙ্গে। সেই লোকটির সহায়তায় তারা সেখান থেকে ফিরে আসে।

তারপরে সেই লোকটিকে মেরে ফেলার জন্য বনদস্যুদের কিছু লোক তার হোটেলে হামলা চালায়। রাশেদ এবং তার বন্ধুকে এমন একটি কাগজ দেয় সেই ভদ্রলোক যে কাগজ তৈরির মাধ্যমে তারা গুপ্তধনের সন্ধান পাবে। প্রকৃতপক্ষে সেই গুপ্তধন লুকিয়ে রেখেছে লরেন্স ডি ক্রুজ এর বংশধর তিবাও। তাই সেই গুপ্তধন এর ম্যাপ কোনভাবেই বনদস্যু সঞ্জয়ের হাতে যেতে দিবে না। এই গুপ্তধনের ম্যাপ এর জন্য সঞ্জয় এবং লরেন্স ডি ক্রুজের সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে এবং একে অন্যের শত্রু হয়ে যাই। তাদের দুজনের ঘটনার সঙ্গে জড়িয়ে পড়ে রাশেদ এবং রাজু।

ডক্টর আরেফিন, ডক্টর কারসন এসে উপস্থিত হয় ভারতে। সেখান থেকে তারা ডক্টর সন্দীপ এবং অন্যান্য সহকারি সাথে নিয়ে একত্রে উপস্থিত হয়ে যায়। তারা এমন একটি জিনিসের খোঁজে এখানে এসেছে যে জিনিসটি নেপালের তিব্বতে পাওয়া যাবে। তারা সাম্ভালার খোজে বেড়িয়েছে। এটি এমন একটি জায়গার এটা মানুষের অমরত্ব লাভের স্থান এবং এখানে সুখ-দুঃখ, ক্ষুধা-তৃষ্ণা সকল কিছুকে জয় করা যায়। তারা যেহেতু সেই স্থানের জন্য একজন চলে এসেছে সেহেতু তাদের পেছনে লাগে বিনোদ চোপড়া নামের এক লোক। যেহেতু রাশেদের দাদা অর্থাৎ সেই লোক সাম্ভালার উদ্দেশ্যে বেরিয়েছেন, ঠিক একই উদ্দেশ্যে বেরিয়েছেন আরো কয়েকজন। বইটিতে উঠে আসে এক মিচনার নামক একজন নাবিকের কথা।

একদিকে সঞ্জয় এই গুপ্তধনের সন্ধান পাওয়ার জন্য আটক করে রেখেছে লরেন্স ডি ক্রুজ, রাশেদ এবং রাজুকে। অন্যদিকে সাম্ভালা খুঁজে এগিয়ে চলেছে ডক্টর এবং তার সহকর্মীরা এবং সেই বৃদ্ধ লোক নিজে। বইটি এভাবেই কাহিনী এবং থাকে এবং জায়গায় জায়গায় থ্রিলিং মনোভাব চলে আসে। তাদের প্রথম অংশের চীনের দ্বিতীয় অংশে থ্রিলিং ভাবটা কম রয়েছে। তারপরও আপনারা যদি না করেন তাহলে তৃতীয় পাঠ খুব সহজেই বুঝতে পারবেন। এই বইটি ডাউনলোড করে নিয়ে পড়ুন।

সাম্ভালা দ্বিতীয় যাত্রা PDF

or

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *