আত্মজৈবনিক গ্রন্থ

ফাউন্টেনপেন PDF Download হুমায়ূন আহমেদ

বাংলাদেশের একজন বিখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও ঔপন্যাসিক হলেন হুমায়ুন আহমেদ। বিখ্যাত বই ‘ ফাউন্টেনপেন ‘ তিনি রচনা করেছেন। এটি তার লেখনির মধ্যে অন্যতম একটি বই। বইটি প্রকাশিত হয়েছে ১৯৬৬ সালে। বইটির ৫ম তম সংস্করণ হয় ২০১১ সালে। বইটি প্রকাশ করেছে অন্য প্রকাশ প্রকাশনী। বইটি হার্ডকাভারে ছাপা হয়েছে। বইটির মোট পৃষ্ঠা সংখ্যাঃ ১১০ টি। বইটির বাংলাদেশী মুদ্রিত মূল্যঃ ২৮০ টাকা। বইটির অনলাইন পিডিএফ সাইজ ০৯ এমবি।

হুমায়ুন আহমেদ সকল বয়সের আর সব ধরণের বই রচনা করেছেন। তিনি তার ব্যক্তিগত জীবনের জন্য এবং তেমন কিছু ঘটনা নিয়েও অনেক বই রচনা করেছেন। এই বইটি তিনি রচনা করেছেন সাহিত্যিক, শিল্প আর সংগীত ব্যক্তিত্ব নিয়ে। বইটি একটি অসাধারণ বই। বই প্রেমী পাঠকরা বইটি পড়তে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে ফ্রী পিডিএফ ডাউনলোড করে পড়তে পারবেন। যারা বইটি এখনো পড়েনি তারা তাড়াতাড়ি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আজই বইটি পড়ে ফেলুন।

ফাউন্টেনপেন বইয়ের মূল কাহিনী

‘ ফাউন্টেনপেন ‘ বইটি মূলত হুমায়ুন আহমেদের আত্মজীবনী মূলক লেখা। এই বইটাকে ঠিক আত্মজীবনীও বলা চলে না। তার এই বইয়ের লেখনি সম্পূর্ণ নতুন ধরনের লেখনি। এটি পড়লে কখনো কখনো মনে হবে আমরা লেখকের জীবনদর্শন নিয়ে কোন লেখা পড়ছি। আবার কখনো কখনো মনে হবে জটিল বিষয় নিয়ে কিছু পড়ছি। আবার কোথাও কোথাও দেখা যায় তার জীবনে ঘটে যাওয়া কিছু গল্পের কাহিনী পড়ছি।

তিনি মূলত এই বইটির লেখা শুরু করেছেন তার সমালোচকদের নিয়ে। তিনি তার সমালোচকদের নিয়ে বিভিন্ন কথা লিখেছেন। তাদের কথা-বার্তা আর চিন্তা-ভাবনা গুলো অত্যন্ত হাস্যরসের সাথে ব্যক্ত করেছেন। হুমায়ুন আহমেদের ধারণা তার সব সমালোচকরা তাদের লেখা গুলোকে কালজয়ী মনে করেন। যার ফলে এই বইয়ে তিনি তার সমালোচকদের নাম দিয়েছেন কালজয়ী এবং তাদের নিয়ে তিনি হাস্যরসাত্মক কথা লিখেছেন।

বিভিন্ন পরিচ্ছদে তিনি বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লিখেছেন। ধর্ম নিয়ে তিনি একটা পরিচ্ছদ লিখেছেন। তিনি এই পরিচ্ছদে সুফিবাদ নিয়ে আলোচনা করেছেন। কিন্তু তিনি বলেছেন সুফিবাদ নিয়ে তার জ্ঞান তেমন সূদুরপ্রসারী নয়। তবুও এটি পড়লে মনে হয় তার আলোচনা গুলো যথেষ্ট গভীর আর যৌক্তিক। এরপর হুমায়ুন আহমেদ তার কিছু ব্যক্তিগত অভ্যাস নিয়ে কিছু লিখেছেন।

তিনি বলেছেন তার একটি অভ্যাস হল তিনি দেশের বাইরে যাওয়ার সময় অনেক বই নিয়ে যেতেন এমনকি সুটকেস ভর্তি করে বই নিয়ে যেতেন। তিনি একবার মিশরে সফরের সময় কি কি বই নিয়েছিলেন তার কিছু কিছু বইয়ের নামও দিয়েছেন এই বইয়ে।

তারপর তিনি জ্বীন, পাখি এইসব নিয়ে একটি পরিচ্ছদ লিখেছেন। যেটা পড়ে জানা যায়, প্রাপ্ত বয়স্ক কোন পাখিকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় না কারণ পাখিরা মৃত্যুর আগে বুঝতে পারে। যখনই তারা আন্দাজ করতে পারে তাদের মৃত্যুর বিষয় তখন তারা লোকালয় ছেড়ে চলে যায়। নিঃসংগ অবস্থায় মৃত্যু বরণ করার জন্য তারা অনেক দূরে চলে যায়।

লেখক হুমায়ুন আহমেদের নিরাপত্তার জন্য একবার গানম্যানের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। সেই গানম্যানকে নিয়ে তিনি লিখেছেন। বন্দুক মানব নামের একটি পরিচ্ছদ রয়েছে এই বইয়ে যা গানম্যানকে নিয়ে লিখা। তিনি বিজ্ঞান, বৃক্ষ, লতাপাতা বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লিখে গেছেন এই বইয়ে। যা পড়লে অনেক কিছু সম্পর্কে জানা যায়। বইটি সত্যিই একটি অসাধারণ বই যা পাঠক হৃদয়ে স্থান করে নিবে।

Download Link 

Show More

Leave a Reply

Your email address will not be published.